১ মাসেই লম্বা চুল পেতে ঘরে তৈরি সহজ একটি হেয়ার মাস্ক

১ মাসেই লম্বা চুল পেতে ঘরে তৈরি সহজ একটি হেয়ার মাস্ক - Saajkonna

১ মাসে লম্বা চুল শব্দটা শুনে আপনি হয়তো ভাবছেন কোন পণ্যের বিজ্ঞাপন! আসলে একেবারেই এমনটা নয়। তাই আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো কিভাবে ঘরে তৈরি মাস্ক দিয়ে এক মাসে চুল লম্বা করা যায়। তার আগে আমি আমার নিজের কিছু সমস্যা ও অভিজ্ঞতা শেয়ার করি আপনাদের সাথে।

আমার মা সবসময় বলতেন নারীর সৌন্দর্য চুলে। আর লম্বা চুল সবসময়ই সবার প্রিয়। আমি সবার সম্পর্কে জানি না, তবে আমি আমার নিজের লম্বা চুল খুব পছন্দ করি। আমার চুল বেশ লম্বা ছিল। চুলের জন্য আমার জনপ্রিয়তা সবার কাছে একটু বেশিই ছিল। সবাই আমার চুল পছন্দ করত। গত বছর আমার টাইফয়েড হয়েছিল। আর যার কারণে আমার চুল এতটাই পড়ে গিয়েছিল যে কাটা ছাড়া আমার আর কোন উপায় ছিল না। খারাপ লাগা সত্ত্বেও, আমি আমার চুল কাটতে বাধ্য হয়েছিলাম। রোগ ভালো হয়ে গেল কিন্তু আমার চুল একটুও বাড়ছিল না।

নিজের চুল গজাতে না পারার যন্ত্রণাটা আরও বেড়ে গেল যখন আশেপাশের সবাই চুলের কথা জিজ্ঞেস করল। আমি অনেক চেষ্টা করেছি কিন্তু এই সমস্যার সমাধান খুঁজে পাইনি। পরে আমার মা আমাকে হেয়ার মাস্ক বানিয়ে দেন। যা ব্যবহার করে এক মাসে আমার চুল অনেক বেড়ে যায়। আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব কিভাবে হেয়ার মাস্ক তৈরি এবং ব্যবহার করবেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক কীভাবে এবং কী কী উপায়ে তৈরি করবেন হেয়ার মাস্ক।

হেয়ার মাস্কটি বানাতে যেসকল উপকরন ব্যবহার করবেন-

  • ডিম- ১ টি
  • অলিভ অয়েল – ১ টেবিল চামচ
  • নারিকেল তেল – ১ টেবিল চামচ
  • মধু – ১ টেবিল চামচ

কিভাবে মাস্ক বানাবেন

প্রথমে একটি পরিষ্কার পাত্র নিন। পাত্রে অলিভ অয়েল, নারকেল তেল এবং মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন। সবশেষে ডিম দিয়ে আবার ভালো করে মিশিয়ে নিন। এখন আপনার হেয়ার মাস্ক প্রস্তুত।

কিভাবে মাস্ক ব্যবহার করবেন

ধীরে ধীরে মাথার ত্বকে মাস্কটি লাগান। তারপর চুলে লাগান। কমপক্ষে এক ঘন্টার জন্য মাস্কটি রেখে দিন। এক ঘণ্টা পর ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। মনে রাখবেন, এই মাস্ক লাগানোর পর কখনোই গরম পানি দিয়ে চুল ধুবেন না। তবে চুল ধোয়ার পর শ্যাম্পুকন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন। ভাল ফলাফল পেতে সপ্তাহে ২-৩ বার মাস্ক ব্যবহার করুন। এক মাসের মধ্যে আপনি আপনার চুলের পরিবর্তন লক্ষ্য করতে সক্ষম হবেন।

Shop at Saajkonna.com

এই মাস্কে ব্যবহৃত প্রতিটি উপাদানের রয়েছে আরও অনেক গুণ। চলুন জেনে নিই মাস্কে ব্যবহৃত উপাদানের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে।

মাস্কে ব্যবহৃত উপাদানগুলোর গুণাগুণ

১. ডিম

এই ডিম ব্যবহারে চুলের অনেক ধরনের সমস্যার সমাধান হয়। ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন এবং ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে যা চুলকে রুক্ষ করে। ডিম আপনার চুলকেও মজবুত করবে। অনেক সময় দেখা যায় চুল ফেটে যায় বা ভেঙ্গে যায়। ডিম ব্যবহারে এ ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

২. নারকেল তেল

নারকেল তেল সবসময় চুলের জন্য অনেক বেশি উপকারী। নারকেল তেলের ব্যবহার চুল পড়া কমায়, চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে এবং চুল গজাতে সাহায্য করে।

৩. অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল চুলের শুষ্কতা দূর করে। চুলকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। মাথার ত্বকের বিভিন্ন ময়লা দূর করতে সাহায্য করে। চুলকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং অলিভ অয়েলও চুলের বৃদ্ধির জন্য অনেক বেশি উপকারী।

৪. মধু

মধু এমন একটি উপাদান যা চুলের কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে এবং চুলকে অনেক বেশি মসৃণ করে। মধু এমন একটি প্রাকৃতিক উপাদান যা চুলের অনেক ধরনের সমস্যার সমাধান কররহ

১ মাসে লম্বা চুল পেতে মাস্ক ব্যবহার করে আমার চুলের অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এবং এক মাসের মধ্যে আমি সেই পরিবর্তন পেয়েছি। আপনিও যদি কম সময়ে চুল গজাতে চান তাহলে এই মাস্কটি ব্যবহার করুন। আর হয়ে উঠুন লম্বা চুলের অধিকারী। মনে রাখবেন, আপনি চাইলে আপনার চুলকে নিখুঁত করে তুলতে পারেন।

আপনি চাইলে অনলাইনে saajkonna.com থেকে আপনার পছন্দের পণ্যটি সংগ্রহ পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Main Menu